বুধবার, ৮ই ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ : ২৩শে আগস্ট, ২০১৭ ইং

নওগাঁয় ফিল্মী কায়দায় চার্জার যাত্রী যুবতীকে অস্ত্রের মুখে তুলেনিয়ে নির্যাতন

মোঃ সুইট হোসেন নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি


নওগাঁয় ফিল্মী কায়দায় চার্জার যাত্রী এক যুবতীকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অপহরন ও শারিরীক নির্যাতন চালিয়েছে অপর ৪ জন চার্জার চালক। ঘটনাটি জানাজানির প্রায় ৬ ঘন্টাপর নির্যাতিত যুবতীকে স্থানিয় জনপ্রতিনিধি ও ফাঁড়ি পুলিশ উদ্ধার করলে খবর পেয়ে ঐ যুবতীর পিতা ও ভাই এসে যুবতীকে নিয়ে গেছে। অপরদিকে বীরদর্পে প্রকাশ্যে ঘুড়ে বেড়াচ্ছে অপহরনকারীরা। এলাকায় আলোচিত ফিল্মী কায়দায় এনারী নির্যাতনের ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার সন্ধা থেকে গভীররাত পর্যন্ত জেলার নওহাটামোড় ফাঁড়ি এলাকায়।

 

স্থানিয় সুত্রে জানাগেছে, বগুগাঁর আদমদিঘী উপজেলার সান্তাহার এলাকার ঐ যুবতীর সাথে বলিহার এলাকার মোতালেব নামের একছেলে মোবাইল ফোনে সম্পর্ক গড়ে ঘটনার দিন বুধবার বিকালে মেয়েটিকে মোবাইলে প্রথমে নওহাটামোড় বাজারে ডেকে নেয়। মেয়েটি নওহাটা বাজারে এসে সন্ধা ঘনিয়ে আসলে মেয়েটিকে একটি চার্জার যোগে বলিহার যেতে বলে মেয়েটি একটি চার্জার ভ্যানযোগে নওহাটামোড় থেকে বলিহার যাওযার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে শ্রীবাশের মোড় নামক স্থানে পৌছলে ঘটনাস্থল থেকে নওহাটামোড় বাজার এলাকায় চলাচলকারী মোস্ত ও মিঠু সহ ৪ জন চার্জার (পালকী) চালক) মেয়েটিকে দেশীয় অস্ত্র (চাকুর) মুখে চার্জার ভ্যান থেকে নামিয়ে চার্জার পালকীতে তুলে নিয়ে ঘটনাস্থল থেকে সটকে পড়েন।

 

ঘটনাটি ভ্যান চালক এলাকার লোকজনকে জানায়। এক পর্যায়ে লোকজনের মাধ্যমে ঘটনাটির সংবাদ ফাঁড়ি পুলিশের কাছে পৌছলে ফাঁড়ি পুলিশ স্থানিয় চার্জার সমিতির নেতা ও ইউপি সদস্য জাহিদুল ইসলাম সহ লোকজনের সহযোগীতায় বিভিন্নভাবে খোঁজ-খবর নিয়ে রাত ১১টারদিকে এলাকায় সড়কের ধারে থেকে মোস্ত ও মিঠুর দুটি চার্জার পালকি উদ্ধার করেন। এসময় মোস্তর চাজারের ভেতর মেয়েদের ব্যবহার করা একটি ভ্যানেটি ব্যাগ ও উদ্ধার করেন । এরকিছুপর সড়কের ধারে এক মাছচাষী তার মাছ চাষের ক্যানেলে লোকজনের আনাগোনা বুঝতে পেরে টর্স লাইটের আলো দিলে কয়েকজন দৌড়ে পালিয়ে গেলেও মেয়েটি এসে নিজেকে বাচানোর জন্য মাছ চাষির কাছে আকুতি জানালে কালাম নামের ঐ মাছ চাষী মেয়েটিকে তার বাড়িতে নিয়ে পড়নের কাপড় ও আশ্রয় দিয়ে মোবাইল ফোনে মেয়েটির বাড়িতে যোগাযোগ করেন । রাত ২টারদিকে মেয়েটির পিতা ও ভাই সহ প্রতিবেশী ৩/৪ জন এসে নওহাটা ফাঁড়ি পুলিশের মাধ্যমে মেয়েটিকে নিয়ে যায় ।

 

এব্যাপারে নওহাটা পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ এস আই আমিনুল ইসলাম ক্রাইম ওয়াচকে জানান, চার্জার নারী যাত্রীকে কয়েকজন চার্জার চালক উঠিয়ে নিয়েগেছে এমন সংবাদ লোকজনের মুখে শুনে স্থানিয় ইউপি সদস্য ও লোকজনের সহযোগীতায় বিভিন্নভাবে খোঁজাখুজি শুরুর এক পর্যায়ে গভীররাতে খোর্দ্দনারায়নপুর গ্রামের জনৈক কালামের বাড়ি থেকে ঐ যুবতী মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয় । তিনি আরো জানান, সংবাদ পাওয়ার পর মেয়ের পিতা ও ভাই সহ লোকজন আসলেও তারা কোন মামলা না করেই তাদের মেয়েকে নিয়ে যেতে চাওয়ায় একটি লিখিত কাগজের মাধ্যমে তারা মেয়েটিকে বুঝেনিয়ে রাত ২ টারদিকে চলে যান।

অপরদিকে চার্জার ভ্যানযাত্রী নারী কে অপহরন করে নিয়ে যাওয়ার কয়েক ঘন্টাপর উদ্ধারে ঘটনাটি শিকার করে স্থানিয় ইউপি সদস্য জাহিদুল ইসলাম জানান, ঘটনা ঘটার পর লোকজন মুখে শুনে ফাঁড়ি পুলিশের সাথে আমরা স্থানিয় কয়েকজন খোজাখুজি করি এবং কয়েক ঘন্টাপর মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয়। তিনি আরো জানান, ঘটনার সাথে চার্জার চালক মোস্ত ও মিঠু জরিত আছে বলে জেনেছি।

 

অপরদিকে অস্ত্রের মুখে নারীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে নির্যাতন ও পরবর্তীতে বীরদর্পে এলাকায় প্রকাশ্যে জরীতরা ঘোরাফেরা করার ঘটনাটি এলাকার লোকজনের মাঝে আলোচনা ও সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

বার্তা কক্ষ মেইল:

news.crimewatchbd24@gmail.com

বার্তা কক্ষ মুঠোফোন:

+৮৮ ০১৯ ২০০ ৯৯২৮৮

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত "ক্রাইম ওয়াচ"

Design & Devaloped BY Popular-IT.Com